New Year Resolution কীভাবে হবে কার্যকরী? জেনে নিন নতুন বছরের স্ব-প্রতিশ্রুতি কোন ধরনের হওয়া উচিত!

0
913
Resolutions You Should Make for 2021
Contents hide
2 কার্যকরী Resolution নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ঃ

নতুন বছর মানেই আবার নতুন করে New Year Resolution-এর তালিকা বানানোর তোড়জোড়। কিন্তু শুধু তালিকা বানালেই কী হবে? প্রতিশ্রুতিগুলো পূর্ণ হবে কী করে? সব উত্তর লুকিয়ে রয়েছে আজকের পোস্টে।

একটি বছর কেটে গিয়ে আসছে আরেকটি নতুন বছর। ২০২১-এর আগমন নিয়ে এইবারে বিশ্বের মানুষ একটু বেশীই উত্তেজিত। ২০২০-তে শুধু সমস্যাই এসেছে মানুষের জীবনে। পুরো বছর জুড়ে বিশ্বের মানুষকে সহ্য করতে হয়েছে স্বজন হারানোর যন্ত্রনা। এছাড়াও পৃথিবী থেকে হারিয়ে গেছেন অনেক বিখ্যাত মানুষ এই বছরেই। ২০২০ শুধুমাত্র মানুষের জীবনে অভিশাপই বয়ে এনেছে। ফলে স্বভাবতই বছরের শুরুতে যেই New Year Resolution মানুষজন নিয়েছিল তার অনেকটাই গেছে বিফলে। তাই মানুষ এখন অনেকটা আশা নিয়ে বসে আছে নতুন বছর ২০২১-এর জন্য।

বিশ্ববাসীর বিশ্বাস ২০২১ পৃথিবীতে আবার শান্তি ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হবে। আবার আগের মতো সুস্থ হয়ে উঠবে পৃথিবী এবং যাদের জীবন থমকে রয়েছে তাদের জীবনও সফলতার দিকে আবার চলতে শুরু করবে। অতএব আবার নতুন করে একরাশ উৎসাহের সাথে মানুষ তৈরী হচ্ছে নতুন বছরের প্রতিশ্রুতির জন্য। এই কাজেই আমাদের পাঠককে সাহায্য করার উদ্দেশ্যে আজকের আমাদের আলোচনার বিষয় হলো New Year Resolution।

নতুন বছরে শুধুমাত্র New Year Resolution অর্থাৎ নতুন প্রতিশ্রুতি নিলেই হবে না। সেই Resolution যাতে কার্যকরী হয় সেই দিকেও রাখতে হবে নজর। তাই এমন ভাবে Resolution নির্ধারন করতে হবে যাতে আসলেই সেইগুলোকে অর্জন করা যায়। উপযুক্ত এবং অর্জনযোগ্য Resolution বানাতে হলে কিছু প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে হয় এবং কিছু বিষয় সম্বন্ধে অবগত থাকতে হয়। সেই বিষয়গুলো নিয়েই হবে আজকের আলোচনা। আপনিও যদি এই বিষয়গুলো মেনে আপনার নতুন বছরের প্রতিশ্রুতি নির্ধারণ করেন তবে সেউ Resolution অবশ্যই অর্জন করা সম্ভব হবে।

কার্যকরী Resolution নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ঃ

১। এমন Resolution নির্ধারন করুন যা আসলেই অর্জনযোগ্য

নতুন বছরের শুরুতে অনেকেই আবেগের বশবর্তী হয়ে এমন কিছু Resolution নিয়ে ফেলেন যা আসলে অর্জন করা কঠিন হয়ে যায়। প্রথম দিকে উৎসাহ নিয়ে সেই Resolution-এর জন্য পরিশ্রম করা শুরু করলেও যখন দেখা যায় এই Resolution অর্জন করা সম্ভব নয়, তখন মানুষ সেই Resolution নিয়ে কাজ করাই বন্ধ করে দেয়। এইভাবে প্রতি বছরেই সবার Resolution মাঝ বছরে এসে বিফলে চলে যায়। তাই বছরের প্রথমেই এমন Resolution নিন যা আসলে অর্জনযোগ্য। আবেগের বশবর্তী হয়ে অনেক বড়ো বড়ো Resolution না নিয়ে সেই রকমই ছোটো ছোটো প্রতিশ্রুতি নিন, তাতে কাজ হবে বেশী।

২। উৎসাহিত হয়ে অতিরিক্ত প্রতিশ্রুতি না নেওয়াই বুদ্ধিমানের

বছরের শুরুতে সবারই মন থাকে এনার্জি এবং পজিটিভিতে ভরপুর তাই সেইসময় কোনোকিছুই অসম্ভব বলে ঠেকে না। ফলে নিজের সাধ্যের অতিরিক্ত Resolution নিয়ে ফেলেন মানুষ। তারপরে মাঝ বছরে এসে সেই অতিরিক্ত Resolution-এর সাথে তাল রাখতে না পেরে বিরক্ত হয়ে Resolution-এর হয় গঙ্গা বিসর্জন।কিন্তু সেটি না করে যদি কম এবং আসলে অর্জন যোগ্য এমন কয়েকটি Resolution নেওয়া যায় তাহলে কিন্তু বছরের শেষে গিয়ে দেখা যায় যে Resolution সফলভাবে সম্পূর্ণ করা সম্ভব হয়েছে। তাই বছরের শুরুতে অতিরিক্ত Resolution না নিয়ে অল্প এমনকি একটা Resolution-ও নিতে পারেন। যদি Resolution সম্পন্নই না করতে পারলেন তাহলে Resolution নিয়ে লাভই বা কি? তার থেকে একটা Resolution নিন আর একটাকেই সফলভাবে সম্পন্ন করুন।

৩। Resolution কীভাবে অর্জন করবেন তার প্ল্যানও তৈরী করুন

শুধুমাত্র উৎসাহ ভরে Resolution নিলেই হবে না সেই Resolution অর্জন করার প্ল্যান অর্থাৎ পরিকল্পনাও তৈরী করতে হবে। সাধারনত আমরা Resolution নিয়েই থেমে যাই কিন্তু কীভাবে সেটিকে অর্জন করা যাবে তার প্ল্যান তৈরী করি না। তাই যেহেতু আমাদের সামনে কোনো প্ল্যান থাকে না তাই উৎসাহতেও ধীরে ধীরে ঘাটতি আসে। তাই বছরের শুরুতে Resolution নেওয়ার সাথে সাথে সেই Resolution অর্জন করার প্ল্যানও তৈরী করুন। চোখের সামনে প্ল্যান তৈরী থাকলে এবং সেই প্ল্যান মাফিক এগোলে সহজেই Resolution অর্জন করা সম্ভব হয়।  

৪। নিজের Resolution-এর দিকে কতটা এগোলেন সেটিও নজরে রাখুন

Resolution নেওয়া হলো তার প্ল্যানও তৈরী করা হলো কিন্তু নিজেকে সেই Resolution-এর জন্য পরিশ্রম করার জন্য রোজকার উৎসাহ দেবেন কোথা থেকে? নিজেকে উৎসাহ যোগানোর জন্য তাই তৈরী করুন Resolution ট্র্যাকার। এই ট্র্যাকারে লিখে রাখুন আপনি আপনার Resolution অর্জনের পথে কতটা এগোলেন। রোজ যখন সেই ট্র্যাকারে দেখবেন যে আপনি আস্তে আস্তে উন্নতি করছেন তখন নিজে থেকেই মনে উৎসাহ আসবে এবং Resolution অর্জন করা আরও সহজ হবে।  

৫। নিজের অভ্যাসের সাথে সম্পর্কযুক্ত Resolution তৈরী করুন

নতুন বছরের উত্তেজনায় আমরা মাঝে মাঝে এমন সমস্ত অদ্ভুদ Resolution নিয়ে ফেলি যে তার সাথে আমাদের অভ্যাসের দূর অবদি কোনো সম্পর্কই নেই। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই সেই Resolution অর্জন করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। তাই Resolution নেওয়ার সময় মাথায় রেখে নিজের অভ্যাসের সাথে সম্পর্কযুক্ত Resolution-ই নেওয়ার চেষ্টা করুন। এই ধরনের Resolution সম্পূর্ণ করতে সুবিধাও হয় বেশী।

৬। Resolution সংক্রান্ত ডায়েরি রাখুন

আপনি যদি ডায়েরি লেখেন তাহলে সেইখানে আপনার Resolution সম্পন্ন করার অভিজ্ঞতা লিখে রাখুন। বছরের শেষে যখন Resolution সম্পূর্ণ হবে তখন সেটি দেখতে ভীষন ভালো লাগবে। এছাড়াও এই ডায়েরি প্রতিদিনের উৎসাহ যুগিয়ে আপনাকে Resolution সম্পন্ন করতে সাহায্য করবে।

৭। প্রত্যেকদিন নিজেকে Resolution-এর কাজ সম্পন্ন করার জন্য পুরষ্কৃত করুন

Resolution-কে সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য উক্ত Resolution-এর জন্য রোজই পরিশ্রম করা প্রয়োজন। আর রোজকার পরিশ্রমের জন্য নিজেকে উৎসাহ প্রদান করাও জরুরি। সেই উৎসাহ প্রদানের জন্য রোজ Resolution-এর জন্য পরিশ্রম করার পর নিজেকে একটি ছোটো উপহার দিন। এখানে উপহার বলতে রোজই কিছু গিফট প্যাকিং করে নিজেকে দেওয়া নয়। আপনি যেই জিনিসটি করতে ভালোবাসেন কিংবা খেতে ভালোবাসেন সেই ধরনের জিনিস নিজেকে উপহার দিন একদিন করে পরিশ্রমের পর। এরফলে কাজটির প্রতি উৎসাহ জন্মাবে এবং সহজেই বছরের Resolution সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।

৮। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের অগ্রগতি শেয়ার করুন

বর্তমানে এখন প্রত্যেকটি মানুষ সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের সাফল্য এবং রোজকার জীবন সংক্রান্ত ছবি বা গল্প পোস্ট করে থাকেন। আপনিও সেই উপায় অবলম্বন করতে পারেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে মানুষ অঙ্গীকার বদ্ধ হন তারফলে সেই কাজ সম্পন্ন করার জন্য মানুষ আরও বেশী করে পরিশ্রম করতে শুরু করেন। তাই আপনিও যদি আপনার Resolution সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন এবং তার অগ্রগতি পোস্ট করেন তাহলে আপনার যেমন Resolution সম্পন্ন করতে উৎসাহ বাড়বে সেইরকমই সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনার ফলোয়ারের সংখ্যাও বাড়তে পারে।  

৯। মাঝে মাঝে Resolution মেনে চলা কঠিন হয়ে পড়তে পারে সেটি বুঝতে শিখুন

আমাদের রোজকার জীবন এমনিতেই ব্যস্ত তারওপরে নিজের জন্য Resolution সম্পন্ন করার কাজের জন্য অতিরিক্ত সময় দেওয়া মাঝে মাঝে অসুবিধার হতে পারে। তাই এমন হতেও পারে মাঝে বেশ কিছুদিনের জন্য Resolution-এর কাজে বিরতি দিতে হতে পারে। কিন্তু তার জন্য নিজের উৎসাহ কমানোর প্রয়োজন নেই। কিছুদিন পর আবার উদ্যমের সাথে লেগে গেলেই আবার সহজ গতিতে Resolution-এর প্রগতি হবে। তাই Resolution নেওয়ার আগে এই ব্যাপারটার জন্যও মনকে তৈরী করে নিতে হবে।

১০। মাঝে মাঝে বিরতিও প্রয়োজন

একটানা যেকোনো কাজ করলেই আমাদের বিরক্তি এসে যায়। আর বিরক্তি আসা মানেই সেই কাজে তিক্ততা আসা এবং সেই কাজে অনীহা প্রকাশ। এই ব্যাপারটি যাতে আপনার Resolution-এর কাজের ক্ষেত্রে না ঘটে সেইদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। Resolution সম্পন্ন করতে হলে তার প্রতি নিজের উৎসাহ বজায় রাখা অত্যন্ত জরুরি তাই মাঝে মাঝে Resolution-এর কাজের থেকে নিজেকে বিরতি দিলে মন্দ হয় না বরং কাজের প্রতি আরও উৎসাহ জন্মায়।

১১। সবসময় মনে রাখবেন এই Resolution নেওয়ার কারণ

বছরের প্রথমে আপনি এই যে Resolution নিচ্ছেন, এটি নিশ্চই কোনো কারনে নিচ্ছেন। আপনার জীবনধারার উন্নতির জন্য একটি অভ্যাসকে আপনার জীবনের অঙ্গ বানানোর জন্য আপনি এই Resolution নিচ্ছেন। এই বিষয়টি সবসময় মাথায় রাখতে হবে। Resolution-এর কারন সম্বন্ধে অবগত থাকলেই তাকে অর্জন করার উৎসাহও আরও বেড়ে যাবে।  

১২। প্রত্যেকদিনের ছোটো ধাপ একদিন লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করবে

Resolution-কে সম্পূর্ণ করার জন্য তার উপযোগী কাজ রোজ অল্প করে হলেও করে যেতে হবে। মনে রাখতে হবে ‘বিন্দু বিন্দুতেই সিন্ধু হয়’। অতএব আপনার ছোটো ছোটো ধাপই বছরের শেষে আপনার Resolution সম্পন্ন করতে সাহায্য করবে।

অতএব আর দেরী না করে ঝটপট বানিয়ে ফেলুন আপনার Resolution এবং সেই মতো এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে এগিয়ে যেতে থাকুন লক্ষ্যের দিকে। নতুন বছর আপনার কাটুক আনন্দ ও উদ্দীপনার সাথে।

আপনার কি মনে হয়?আপনার মতামত অবশ্যই আমাদের জানান কমেন্ট সেকশনের মাধ্যমে এবং like ও শেয়ার করে পোস্টটিকে ছড়িয়ে দিন সকলের মাঝে।টেকনোলজি সম্বন্ধিত আরও খবর জানতে চোখ রাখুন টুকিটেকের ওয়েবসাইট এবং সোশ্যাল মিডিয়া পেজে। 

আরও পড়ুনঃ ১৯টি APP-এর সাহায্যে এখন ইংলিশ শিক্ষা হোক স্মার্ট উপায়ে!

Leave a Reply