আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নিয়ে বৈধ উপায়ে আপনিও করতে পারবেন অর্থ উপার্জন! – জেনে নিন উপায়

0
7055
aadhaar-franchise

সরকারের থেকে আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নিয়ে আপনিও খুলে ফেলতে পারবেন আঁধার কার্ডের বৈধ সেন্টার। আঁধার কার্ডের এই সেন্টারের মাধ্যমে আপনি আঁধার কার্ড সংক্রান্ত পরিষেবার দেওয়ার পরিবর্তে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। আজকের পোস্টে এই সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্যের সন্ধান দেওয়া হলো।

বর্তমানে সরকারি ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নথির মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ নথি হলো আঁধার কার্ড। এখনকার সময়ে সমস্ত কাজের ক্ষেত্রেই আঁধার কার্ড একটি গুরুত্বপূর্ণ নথি হিসাবে বিবেচিত হয়।

আধার কার্ড আজকের সময়ের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দলিল যার মাধ্যমে বিভিন্ন ক্ষুদ্র কাজ সম্পন্ন হয়। জিনিস কেনা-বেচা থেকে শুরু করে ব্যাংকের লেনদেন সমস্ত ক্ষেত্রেই এখন আঁধার কার্ড জরুরি। এই সমস্ত ক্ষেত্রে আঁধার কার্ড নিয়ে কাজ করতে গেলে আগে দেখে নিতে হয় আঁধার কার্ডের সমস্ত তথ্য ঠিকঠাক আছে কিনা। অনেক সময়ে আঁধার কার্ডের তথ্য ভুল থাকে। তখন তাঁকে আঁধার কার্ডের সেন্টারে নিয়ে গিয়ে আপডেট করিয়ে আনতে হয়। আঁধার কার্ড সেন্টারে আপডেট করানো ছাড়াও নতুন আধার কার্ড তৈরীর প্রক্রিয়াও চলে। এই আপডেট এবং নতুন আঁধার কার্ড বানানোর প্রক্রিয়াকে সহজ করে তোলার জন্যই সরকারের তরফ থেকে আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি বিতরণ করা যায়। সঠিক উপায় জানা থাকলে আপনিও সরকারের থেকে আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নিতে পারবেন। আপনি এই ধরনের ফ্র্যাঞ্চাইজি গ্রহণ করলে এই ক্ষেত্র থেকে অনায়াসেই উপার্জন করতে পারবেন। আধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নিতে হলে সবথেকে আগে লাইসেন্স জোগাড় করা দরকার।  আজকের পোস্টে আঁধার কার্ডের এই ফ্র্যাঞ্চাইজি কীভাবে আপনি নিতে পারবেন তারই বিস্তারিত সন্ধান দেওয়া হলো।

আজকের পোস্টের আলোচিত বিষয়ঃ

আঁধার কার্ড সেন্টার খোলার জন্য কোন কোন ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করার প্রয়োজন পড়ে?

কোনো ব্যবসা শুরু করার আগেই মানুষের মাথায় একটাই প্রশ্নের উদয় হয় যে উক্ত ব্যবসা শুরু করতে গেলে কোন কোন বিষয়ে বিনিয়োগ করার প্রয়োজন পড়তে পারে। এই বিনিয়োগের ওপরই নির্ভর করে মোট অর্থের পরিমান, যেটি খরচ করা হবে ব্যবসার পেছনে কাঁচামাল হিসাবে।

আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নিতে গেলেও সেন্টার তৈরী করার জন্য কিছু অর্থ খরচের প্রয়োজন পড়বেই। সেন্টার খোলার আগে কোন কোন বিষয়ে খরচ পড়বে সেটি দেখে নেওয়া যাক।

ইন্টারনেট পরিষেবা

আঁধার কার্ড সেন্টার খুলতে গেলে একটি ভালো ইন্টারনেট পরিষেবা থাকা অত্যন্ত জরুরি। কারণ আঁধার কার্ড বানানোর সমস্ত কাজই হয়ে থাকে অনলাইনের মাধ্যমে। তাই এই কাজ সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য সেন্টারে উন্নতমানের ইন্টারনেট পরিষেবা থাকা অত্যন্ত জরুরি।

কম্পিউটার –

আঁধার কার্ড বানানোর সমস্ত কাজই হয় কম্পিউটারে তাই সেন্টারে একটি কম্পিউটার থাকা অপরিহার্য।

ওয়েবক্যাম –

আঁধার কার্ড বানানোর জন্য আঁধার কার্ডের ব্যবহারকারীর তাৎক্ষনিক একটি ছবি নেওয়ার প্রয়োজন পড়ে। এই জন্যই বিশেষ করে আঁধার কার্ড সেন্টারে ওয়েবক্যাম থাকা জরুরি।

প্রিন্টার –

আঁধার কার্ড প্রিন্ট করে বের করার জন্য তো অবশ্যই সেন্টারে একটি প্রিন্টার থাকা দরকার।

আইরিশ স্ক্যানার মেশিন –

আঁধার কার্ডের জন্য বায়োমেট্রিক সত্যতার প্রমান নেওয়াও জরুরি। তাই আঁধার কার্ডের সেন্টার প্রতিষ্ঠা করতে গেলে একটি আইরিশ মেশিনের পেছনে বিনিয়োগ করা প্রয়োজনীয়।

একটি ঘর –

আঁধার কার্ডের একটি সেন্টার প্রতিষ্ঠা করার জন্য জায়গার প্রয়োজন সবথেকে বেশী। তাই আঁধার কার্ডের সেন্টার প্রতিষ্ঠা করতে গেলে সর্বাগ্রে একটি ঘরের পেছনে বিনিয়োগ করা বাঞ্ছণীয়।

আঁধার কার্ড সেন্টার খোলার জন্য কত পরিমান খরচ পড়ে?

আঁধার কার্ড সেন্টার খোলার জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনার কোনো খরচ পড়বে না। কারণ সরকার ফ্র্যাঞ্চাইজির জন্য কোনোরকমের অর্থ চার্জ করে না। কিন্তু সেন্টার প্রতিষ্ঠা করার জন্য উপরে উল্লেখিত বস্তুগুলোর জন্য বিনিয়োগ করা প্রয়োজন। তাই একটি আঁধার কার্ড সেন্টার খুলতে গেলে একজনের মোটামোটি এক থেকে দেড় লাখের মতো অর্থ খরচ হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।

আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার জন্য প্রয়োজন লাইসেন্স জোগাড় করা

  • যে ব্যক্তি আধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজি খুলে কাজ শুরু করতে চান, তাকে অবশ্যই প্রথমে লাইসেন্সের জন্য আবেদন করতে হবে। আধার কার্ড একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পরিচয়পত্র এবং তাই এর জন্য লাইসেন্স পাওয়া সহজ নয়। আবেদনকারীকে আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি খোলার জন্য লাইসেন্স পেতে হলে আগে  একটি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।
  • এই পরীক্ষাটি UIDAI কর্তৃক গৃহীত হয়। এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আবেদনকারী একটি সার্টিফিকেট পান, যার মাধ্যমে তিনি আধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজির লাইসেন্স পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারেন।
  • এর জন্য তাকে সিএসসি সেন্টারের মাধ্যমে তার নিজের আঁধার কার্ড এবং বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশনের পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে এবং পুরো প্রক্রিয়ার পরই আবেদনকারী লাইসেন্স পেতে সক্ষম হবেন।

লাইসেন্স অর্জন করার প্রক্রিয়া

  • আঁধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজির লাইসেন্স পেতে হলে NSCIT পোর্টালে লগইন আইডি এবং পাসওয়ার্ড তৈরি করতে হবে আবেদনকারীকে।
  • এখানে লগইন আইডি এবং পাসওয়ার্ড তৈরি হওয়ার পর, সাইটের ভিতরে লগইন করা প্রয়োজন। লগ ইন করার পর আবেদনকারীকে তার আঁধার কার্ডের একটি সফট কপি জমা দিতে হবে। এরপর আবেদনকারী স্ক্রীনে একটি কোড দেখতে পাবেন, যেটিকে তাঁকে সাবধানতার সাথে পূরণ করতে হবে
  • এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ার পর, একটি নতুন ফর্ম খুলে যাবে, যেখানে আবেদনকারীকে সমস্ত তথ্য পূরণ করতে হবে। আবেদনকারীকে তার স্বাক্ষর এবং পাসপোর্ট সাইজ ছবির একটি কপি আপলোড করতে হবে।
  • সম্পূর্ণ তথ্য সঠিক ভাবে পূরণ করেছেন কী না তা পরীক্ষা করার পর, সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন এবং ফর্মটি জমা দিয়ে দিন।

আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার জন্য সরকারকে কত পরিমান অর্থ দিতে হয়?

সাধারণত, যে কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি নিতে হলে কোম্পানিকে কিছু অর্থ প্রদান করতে হয়। কিন্তু আধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজি পেতে কোন ধরনের অর্থ জমা করতে হবে না আবেদনকারীকে। বর্তমানে এই পরিষেবা খুব প্রয়োজন কারণ সাধারণ জনগণ তাদের আঁধার কার্ড পেতে এবং আপডেট করতে গিয়ে অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন, তাই সরকার সেই কাজকে সুবিধাজনক করে তোলার জন্যই আধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজি প্রদান করার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

আঁধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার জন্য কী কোনো পরীক্ষা দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে?

হ্যাঁ, আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার জন্য আবেদনকারীকে একটি পরীক্ষা দিতে হয়।

  • NSCIT পোর্টালে আবেদনকারী এই পরীক্ষার সমস্ত তথ্য পাবেন যেমন পরীক্ষার সেন্টার টাইম, ডেট ইত্যাদি।
  • আবেদনকারীকে পোর্টাল থেকে পরীক্ষার জন্য তার অ্যাডমিট কার্ডও নিতে হবে।

আঁধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজি থেকে কত পরিমান অর্থ উপার্জন করা সম্ভব?

আঁধার কার্ড ফ্র্যাঞ্চাইজির মাধ্যমে আঁধার কার্ড সেন্টার স্থাপন করে যে কোনও ব্যক্তি কমপক্ষে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত মুনাফা অর্জন করতে পারবেন। আর যদি আপনার সেন্টার বিশেষ দক্ষতার সাথে কাজ করে লোকের বিশ্বাস অর্জন করতে পারে তাহলে এই উপার্জনের পরিমান আরও বেড়ে যাবে।

আপনি যদি টেকনোলজি ব্যবহারের ক্ষেত্রে দক্ষতা সম্পন্ন হন তাহলে আপনি যেকোনো জায়গায় আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি খুলে অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন। আপনার কি বক্তব্য আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার প্রক্রিয়া সম্বন্ধে? আমাদের বিশ্বাস আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার প্রক্রিয়া আপনাকে একটি নতুন ধরনের উপার্জনের সন্ধান দেবে। পাঠকদের উপার্জনের এক নতুন দিশা দেখানোর উদ্দেশ্যে আঁধার কার্ডের ফ্র্যাঞ্চাইজি নেওয়ার প্রক্রিয়া নিয়ে লেখা এই পোস্ট আপনার কেমন লাগলো তা অবশ্যই আমাদের জানান কমেন্ট সেকশনের মাধ্যমে এবং লাইক ও শেয়ার করে পোস্টটিকে ছড়িয়ে দিন সকলের মাঝে। এছাড়াও টেকনোলজি জগতের বর্তমান খবরা-খবর রাখতে এবং নিজের জীবনকে আরও আধুনিকতায় সাজিয়ে তুলতে অবশ্যই চোখ রাখুন টুকিটেকের ওয়েবসাইট এবং সোশ্যাল মিডিয়া পেজে। 

আরও পড়ুনঃ আন্তর্জালিক অর্থের তত্ত্বতালাশ!-জেনে নিন Bitcoin সম্বন্ধে বিস্তারিত তথ্য!

Leave a Reply