অনলাইনে নিজের ব্যবসা শুরু করতে চান?জেনে নিন তার খুঁটিনাটি

0
788

বর্তমান যুগে মানুষের প্রত্যেকটি কাজই হচ্ছে অনলাইনে।তাই ব্যবসার জন্য ইন্টারনেট হয়ে উঠেছে একটা বড়সড় মাধ্যম।তার সাথে সাথে এই মাধ্যম মানুষের সামনে খুলে দিয়েছে অর্থ উপার্জনের এক সূবর্ণ সুযোগ।

অনলাইন ব্যবসা শুরু করা সহজ এবং এতে বিনিয়োগের পরিমানও কম হয়।এছাড়াও অনলাইন ব্যবসার আরও অনেক সুযোগ-সুবিধা আছে।

  • অনলাইনের মাধ্যমে ব্যবসা করলে বিক্রেতা সহজেই ক্রেতাকে তার ব্যবসার সমস্ত জিনিস একসাথে দেখাতে পারবে।
  • সময়ের কোনোরকম অসুবিধা হবে না।
  • বিক্রেতা দেশের যেকোনো জায়গা থেকে তার নিজের জিনিস বিক্রি করতে পারবেন।
  • উপার্জনের ভালো সুযোগ
  • পার্ট টাইম হিসেবেও করা যেতে পারে এই ব্যবসা।
  • সারা বিশ্বজুড়ে সহজেই ব্যবসা ছড়িয়ে দেওয়া যায় এবং তাতে উপার্জনের পরিমান বৃদ্ধি পায়।

১।সোশাল মিডিয়ায় প্রোডাক্ট বিক্রি

অনলাইনে ব্যবসা শুরু করার সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হল সোশ্যাল নেটোয়ার্কিং প্ল্যাটফর্মে নিজের প্রোডাক্ট বিক্রি করা।ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম ইত্যাদি আরও অন্যান্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট নিজেরাই এক একটা ই-কমার্স স্টোরের মতো এখানে অনায়াসেই বিক্রেতারা নিজেদের প্রোডাক্ট বিক্রি করতে সক্ষম হবেন।প্রথম দিকে দামটা কম রাখলে এবং ডেলিভারি সার্ভিস ভালো রাখলে ব্যবসাও চলবে গড়গড়িয়ে।

২।ই-কমার্স স্টোর

অনলাইনে বিজনেসের জন্য বিক্রেতা নিজের ই-কমার্স স্টোরও খুলতে পারেন।তবে ই-কমার্স স্টোর শুরু করতে গেলে তাতে অর্থ বিনিয়োগের প্রয়োজন পড়বে। ‘শপিফাই’-এর মাধ্যমে নিজের অনলাইন স্টোর বানাতে পারেন বিক্রেতা।এছাড়াও ওয়ার্ডপ্রেস নির্ভর ই-কমার্স স্টোর বানাতে পারেন বিক্রেতা।

৩।বিজনেস অ্যাপ

অনলাইনে ব্যবসার জন্য তৈরী করা যেতে পারে নিজের বিজনেস অ্যাপ।তবে অ্যাপ বানানোর জন্য android ও ios প্রোগ্রামিং-এর ওপর টেকনিক্যাল জ্ঞানের প্রয়োজন।অ্যাপ তৈরী হয়ে গেলে সেটিকে তখন play store ও app store ছেড়ে দেওয়া যেতে পারে।

৪।ডোমেন ক্রয়বিক্রয়  

ডোমেন কেনা-বেচার মাধ্যমে বেশ অনেক অর্থ উপার্জন করার সুযোগ থাকে।তবে এই ব্যবসা করার আগে এই সম্বন্ধে ভালোকরে রিসার্চ করে নেওয়া প্রয়োজন। Flippa এবং godaddy নিলাম ডোমেন কেনা-বেচার জন্য একদম উপযুক্ত জায়গা।

৫।ফেসবুকে প্রোডাক্ট ক্রয়বিক্রয়

ফেসবুকের মাধ্যমেও রমরমিয়ে চালানো যায় অনলাইন বিজনেস।ফেসবুকে একটি গ্রুপ তৈরী করে তার মাধ্যমে নিজের প্রোডাক্ট লোকজনের মাঝখানে শেয়ার করে শুরু করা যায় অনলাইন বিজনেস।ফেসবুকের মাধ্যমে অনলাইন ব্যবসা সফল হওয়ার সুযোগ বেশী থাকে।

৬।নিজের ব্লগ শুরু করা যেতে পারে

কিছু অর্থ বিনিয়োগ করে নিজের নামে একটি ডোমেন কিনে শুরু করা যায় নিজের ব্লগ।তবে প্রথম দিকে ব্লগ থেকে অর্থ উপার্জন একটু কঠিন ব্যাপার।ব্লগ থেকে অর্থ উপার্জন করতে হলে আগে ব্লগকে জনপ্রিয় করা প্রয়োজন। তার জন্য ব্লগে নিয়মিত উন্নতমানের কন্টেন্ট পোস্ট করা প্রয়োজন।ব্লগ থেকে গুগল অ্যাডসেন্স এবং সরাসরি বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হয়।

৭।অনলাইন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং-এর মাধ্যমে সহজেই অর্থ উপার্জন করা সম্ভব হয়।ফ্লিপকার্ট, স্ন্যাপডিল, অ্যমাজন ইত্যাদির মতো অনলাইন স্টোরের সাথে অ্যাফিলিয়েটেড হতে হবে। এরপর লোককে নিজের মাধ্যমে কিংবা ই-মেল মার্কেটিং-এর মাধ্যমে কিংবা কোনো ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সেইসব অনলাইন স্টোর থেকে জিনিস কিনতে উৎসাহিত করতে হবে।ক্রেতার প্রত্যেক কেনাকাটির ওপর পাওয়া যায় বেশ ভালো রকমের কমিশন।

৮।সোশাল মিডিয়া পরামর্শকারী

যদি আপনি ভীষণভাবে সামাজিক হন এবং লোকজনের সাথে কথা বলে তাদের প্রভাবিত করার ক্ষমতা যদি আপনার মধ্যে থেকে থাকে তাহলে এই ব্যবসা আপনার জন্য একেবারে সঠিক।অনলাইনে কোনো প্রোডাক্ট বিক্রি করার জন্য কিংবা কোনো সোশাল মিডিয়া পেজের লাইক বাড়ানোর কাজে দরকার পড়ে সোশাল মিডিয়া পরামর্শকারীকে।প্রোজেক্ট ও কাজের ওপর ভিত্তি করে অর্থ উপার্জন করা যায়।

৯।প্রফেশনাল লেখক

যদি আপনার ভালো কন্টেন্ট লেখার ক্ষমতা থাকে তাহলে অনলাইনে লেখালেখির মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা সহজ হবে আপনার জন্য।ব্লগার এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটের সাথে যোগাযোগ করতে হবে লেখার কাজ পাওয়ার জন্য।তবে এই কাজ থেকে পরিমানমতো অর্থ উপার্জন করার উদ্দেশ্য থাকলে লেখার হাত ভীষন ভাল হওয়া প্রয়োজন।

১০।অনলাইনে শিক্ষকতার কাজ

সর্বশেষ অনলাইন ব্যবসার পথ হলো শিক্ষা ক্ষেত্র।যদি শিক্ষকতার দিকে ঝোঁক থেকে থাকে তাহলে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের পরিয়েও অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।এছাড়াও বিভিন্ন এডুকেশনাল অ্যাপ আছে তাদের সাথে যোগাযোগ করে তাদের এডুকেটর হিসাবে নিযুক্ত হয়েও দেশসুদ্ধ ছাত্রছাত্রীদের পড়িয়ে পরিমানমতো অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

এখন ঘরে বসে থাকা মানে আর সময় নষ্ট করা না।এখনকার যুগে ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে সারা দেশ জুড়ে ব্যবসা করে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।প্রচেষ্টা ও পরিশ্রমের মাধ্যমে ওপরের এই সবকটি ব্যবসার মাধ্যমেই বেশ ভাল পরিমানে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

আপনার কি মনে হয়?আপনার মতামত অবশ্যই আমাদের জানান কমেন্ট সেকশনের মাধ্যমে এবং লাইক ও শেয়ার করে পোস্টটিকে ছড়িয়ে দিন সকলের মাঝে।টেকনোলজি সম্বন্ধিত আরও খবর জানতে চোখ রাখুন টুকিটেকের ওয়েবসাইট এবং সোশ্যাল মিডিয়া পেজে। 

Leave a Reply